সিরি-এ: জুভেন্টাসের জয়ের দিনে দিবালা ইনজুরিতে, জয় পেয়েছে নাপোলি

ইনজুরিতে পড়ে মাঠত্যাগের আগে দুর্দান্ত এক গোলে জুভেন্টাসকে জয় উপহার দিয়ে গেছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড পাওলো দিবালা। রোববার সিরি-এ লিগে উত্তেজনাকর ম্যাচে সাম্পদোরিয়াকে ৩-২ গোলে পরাজিত করেছে জুভেন্টাস। তুরিনের আলিয়াঁজ এরিনাতে এটাই এবারের মৌসুমে জুভেন্টাসের প্রথম জয়।
ইনজুরির কারনে বুধবার চেলসির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দিবালার খেলা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। ম্যাচের ১০ মিনিটে দিবালার দুর্দান্ত গোলে এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। লিওনার্দো বনুচ্চি ও ম্যানুয়েল লোকাতেল্লির আরো দুই গোলে জুভেন্টাসের তিন পয়েন্ট নিশ্চিত হয়। এই জয়ে ৬ ম্যাচে ৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের নবম স্থানে উঠে এসেছে তুরিনের জায়ান্টরা। কিন্তু ২২ মিনিটে পেশীর ইনজুরিতে পড়ে মাঠত্যাগে বাধ্য হন দিবালা। এনিয়ে জুভেন্টাসের ইনজুরির তালিকা আরো দীর্ঘ হলো।
দিনের আরেক ম্যাচে নিজেদের মাঠে কালিয়ারিকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছে নাপোলি। নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড ভিক্টর জেমস ওসিমেনের গোলে দিয়েগো আরমান্ডো ম্যারাডোনা স্টেডিয়ামে ১১ মিনিটে এগিয়ে যায় নাপোলি। লোরেঞ্জো ইনসিগনে ৫৭ মিনিটে স্পট কিক থেকে ব্যবধান দ্বিগুন করেন। এই জয়ে ৬ ম্যাচে শতভাগ জয় নিয়ে সম্ভাব্য ১৮ পয়েন্টসহ টেবিলের শীর্ষে অবস্থান করছে নাপোলি।
তুরিনের মাঠে দিবালার শুরুটা দারুন হয়েছিল। ১০ মিনিটে ম্যানুয়েল লোকাতেল্লি শট ব্লক হবার পর প্রথম সুযোগেই দিবালা গোল করে দলকে এগিয়ে দেন। সব ধরনের প্রতিযোগিতায় এটি এবারের মৌসুমে দিবালার নবম গোল। দিবালার ইনজুরিতে কিছুটা ছন্দহীন হয়ে পড়ে স্বাগতিকরা। কিন্তু ৪৩ মিনিটে স্পট কিক থেকে বনুচ্চির গোলে স্বস্তি ফিরে আসে জুভেন্টাস শিবিরে। জুভেন্টাসের কোচ মাসিমিলিয়ানো আলেগ্রি ম্যাচ শেষে বরেছেন দিবালা ও তার স্ট্রাইকিং পার্টনার আলভারো মোরাতা উভয়ই ইনজুরিতে পড়েছেন। বুধবার চেলসির বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ও শনিবার তোরিনোর বিপক্ষে সিরি-এ লিগে তুরিন ডার্বিতে এই দুজনের খেলা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। আলেগ্রি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বিরতির পর আমরা তাদের ফিরে আসার আশা করছি। ইনজুরি ফুটবলের একটি অংশ, একে মেনে নিতেই হবে। এখন এটা আমাদের সাথে হয়েছে, অন্য কোন সময় হয়ত অন্য কোন দলের সাথে হবে। তাদের অনুপস্থিতিতে আমাদের এগিয়ে যাবার পথ খুঁজে বের করতে হবে।’
বনুচ্চির পেনাল্টির গোলের আন্দদ অবশ্য খুব বেশীক্ষন স্থায়ী হয়নি। পরের মিনিটেই এন্টোনিও কানড্রেভার ক্রস থেকে মায়া ইয়োশিদা গোল করে সাম্পদোরিয়াকে আশাবাদী কওে তুলে।
এবারের লিগে প্রথম পাঁচ ম্যাচে জুভেন্টাসর জয়ের ধারায় থেকেও শেষ পর্যন্ত পয়েন্ট হারিয়েছে। কিন্তু ম্যানুয়েল লোকাতেল্লি তার পুনরাবৃত্তি করতে দেননি। ৫৭ মিনিটে তিনি স্বাগতিকদের জয় নিশ্চিত করেন। সাসৌলো থেকে ধারে খেলতে আসার পর এটাই জুভেন্টাসের জার্সি গায়ে তার প্রথম গোল। এরপর ফেডেরিকো চিয়েসাকে দিয়ে চতুর্থ গোলটি প্রায় করেই ফেলেছিলেন লোকাতেল্লি। কিন্তু তিনজন ডিফেন্ডারকে কাটিয়েও শেষ পর্যন্ত চিয়েসা গোলের ঠিকানা খুঁজে পাননি। ম্যাচ শেষের সাত মিনিট আগে আদ্রিয়েন সিলভার পুল ব্যাক থেকে কানড্রেভা দারুন ফিনিশিংয়ে গোল করলে স্বাগতিক সমর্থকদের মধ্যে দু:শ্চিন্তা দেখা দেয়। যদিও শেষ পর্যন্ত আর কোন গোল না হওয়ায় পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়ে স্বাগতিকরা।
দিনের শেষ রোম ডার্বিতে হোসে মরিনহোর রোমাকে জিততে দেয়নি ল্যাজিও। দারুন উত্তেজনাকর ম্যাচে শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলে জয়ী হয়ে মরিজিও সারির ল্যাজিও সিরি-এ টেবিলের শীর্ষ ৬ দলের মধ্যে চলে এসেছে। এর মাধ্যমে ল্যাজিও চার ম্যাচে জয়বিহীন থাকার হতাশাও শেষ হয়েছে।
লিগ ও ইউরোপা লিগ মিলিয়ে দুই ড্র ও দুই পরাজয়ের বাজে ফর্ম নিয়েই কাল স্তাদিও অলিম্পিকোতে খেলতে নেমেছিল ল্যাজিও। কিন্তু হোসে মরিনহোর অধীনে প্রথম রোম ডার্বিতে প্রতিবেশীকে জিততে দেয়নি ল্যাজিও। ল্যাজিও মিডফিল্ডার সার্হেই মিলিকোভিচ-সাভিচ বলেছেন, ‘শেষ পর্যন্ত আমরা একটি ভাল ম্যাচ খেলতে পারলাম। আগের ম্যাচগুলোর তুলনায় আজ আমরা অনেক ভাল খেলেছি। সামনে এগিয়ে যাবার জন্য এই জয়টা আমাদের জরুরী ছিল। এর থেকে অনুপ্রেরনা নিয়েই আমরা পরবর্তী ম্যাচে মাঠে নামবো।’
১০ মিনিটে মিলিনকোভিচ-সাভিচের গোলে এগিয়ে যায় ল্যাজিও। ১৯ মিনিটে সাবেক ক্লাবের বিপক্ষে ব্যবধান দ্বিগুন করেন পেড্রো। রোম ডার্বিতে তৃতীয় খেলোয়াড় হিসেবে উভয় দলের হয়ে গোল করার কৃতিত্ব দেখালেন পেড্রো। এর আগে মে মাসে রোমার হয়ে তিনি গোল করেছিলেন। ৪১ মিনিটে রজার ইবানেজ এক গোল পরিশোধ করেন। এরপর নিকোলো জানিয়োলোর শট পোস্টে লাগলে হতাশ হতে হয় রোমাকে।
দ্বিতীয়ার্ধের ৬২ মিনিটে কাউন্টার এ্যাটাক থেকে ফিলিপ এন্ডারসন ল্যাজিওর ব্যবধান আবারো দ্বিগুন করলে কার্যত রোমার আশা শেষ হয়ে যায়। বিতির্কত এক পেনাল্টি থেকে ৬৯ মিনিটে জর্ডান ভেরেটুট রোমার হয়ে দ্বিতীয় গোল করেন। অভিজ্ঞ গোলরক্ষক পেপে রেইনার দুটি অসাধারন সেভ করে শেষ পর্যন্ত ল্যাজিওকে রক্ষা করেন।
এই জয়ে চতুর্থ স্থানে থাকা রোমার থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে ১১ পয়েন্ট নিয়ে ষষ্ঠ স্থানে উঠে এসেছে ল্যাজিও।